1. news@mymensinghlive.com : Abdul Kaium : Abdul Kaium
  2. mymensinghnews3454@gmail.com : mymensinghnews :
  3. news@mymensingh.news : newsdesk1 :
  4. 33ewrwr@gmail.com : ময়মনসিংহ লাইভ ডেস্ক : ময়মনসিংহ নিউজ ডেস্ক
বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৪:০১ অপরাহ্ন

চলুন যাই ফরাসিদের উপনিবেশ ফরাসডাঙ্গায়

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : রবিবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • ৮২ বার পড়া হয়েছে

এবারের শীতে কলকাতা থেকে মাত্র দেড় ঘণ্টার দূরত্বে ঘুরে আসুন ফরাসি উপনিবেশে। হুগলি নদীর তীরে দাঁড়িয়ে রয়েছে ফরাসি উপনিবেশের সাক্ষী হয়ে পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলার চন্দননগর। খলিসানি, বোরো ও গোন্দলপাড়া নামের তিনটি প্রাচীন মৌজা এবং গৌরহাটির ছিটমহলসহ নয় বর্গ কিলোমিটার এলাকা নিয়ে আজকের চন্দননগর। এক সময়ে এই চন্দননগরে ছিল ফরাসি উপনিবেশ। যে কারণে আজও অনেকে চন্দননগরকে ফারাসডাঙ্গা বলে ডাকে।

চন্দননগরের ইতিহাস

ফরাসিদের আগমের আগে বাণিজ্যিক সমৃদ্ধির জন্য চন্দননগরের যথেষ্ট খ্যাতি ছিল। কথিত আছে, একসময় বিপুল চন্দন কাঠের ব্যবসা এখানে হতো বলেই এই জায়গাটির নামকরণ করা হয় চন্দননগর। অতীতে ইংরেজ শাসিত কলকাতার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সমৃদ্ধ নগরীতে পরিণত হয় ফরাসি শাসিত চন্দননগর। কলকাতার মতো চন্দননগরেও রয়েছে স্ট্রান্ড রোড, বড়বাজার, বাগ বাজার, বউ বাজার এলাকা। এখানকার রাস্তাঘাটে আজও রয়েছে ফরাসি আমলের ছাপ। শোনা যায়, ফরাসি উপনিবেশ হওয়ায় ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের সময় বিপ্লবীরা এখানে এসে লুকিয়ে থাকতেন। আলিপুর বোমা মামলায় মূল অভিযুক্ত বিপ্লবী অরবিন্দ ঘোষ ও অন্য বিপ্লবীরা এই চন্দনগরেই আশ্রয় নেন। এমনকী চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুণ্ঠনের ঘটনায় জড়িত গণেশ ঘোষ, অনন্ত সিংহ, শহীদ জীবন ঘোষালরাও এখানে এসে লুকিয়ে ছিলেন। সেই সময় এই চন্দননগরে ফরাসি উপনিবেশ হওয়ার কারণে ব্রিটিশ পুলিশকে এখানে অনুমতি নিয়ে প্রবেশ করতে হতো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
কপিরাইট © ময়মনসিংহ.নিউজ